সন্তানের সাথে কেন সর্বদাই পজিটিভ আচরন করবেন !

গল্পটা “টমাস আলভা এডিসন” এর। যা কিনা গল্প বললে ভুল হবে। এটি তার জীবন বদলে দেয়া ঘটনা বললেও ভুল হবেনা। পিতৃহারা ৭-৮ বছর বয়সের ছেলেটি (টমাস ) স্কুল হতে বাড়ীতে এসে মাকে বলল, "মা, প্রিন্সিপাল আমাকে আদর করে কিছু ক্যান্ডি দিয়েছে। আর, তোমার জন্য এই চিঠিটা।" মা চিঠিখানা খুলে পড়ে কেঁদে ফেললেন।


মায়ের চোখে জল দেখে ছেলেটি বলল, "মা, কাঁদছ কেনো?" চোখ মুছতে মুছতে মা বললেন, "বাবা, এটা আনন্দের কান্না!" বলেই ছেলেটিকে চুমু দিয়ে বললেন, "আমার জিনিয়াস বাবা, তোকে চিঠিটা পড়ে শোনাই।" মা আনন্দের সাথে চিৎকার করে স্যার‌ের ল‌েখার ভাষা বদল‌ে নিজের মত কর‌ে পড়তে লাগলেন, "ম্যাম, আপনার ছেলেটি সাংঘাতিক জিনিয়াস। আমাদের ছোট্ট শহরে ওকে শিক্ষা দেওয়ার মত শিক্ষক আমাদের নেই। তাই, যদি পারেন আপনার ছেলেকে বড় শহরে কোনো স্কুলে ভর্তি করে দিলে ভালো হয়। এই ছেলেটি একদিন বিশ্বে প্রচুর সুনাম অর্জন করবে।" পত্রখানা পড়েই মা, ছেলেটিকে চুমু দিয়ে বললেন, "এই জিনিয়াস ছেলেটিকে আমি নিজেই পড়াব।"
মা নিজেই শিক্ষা দিয়ে ছেলেটিকে যুক্তরাষ্ট্রের তথা সমগ্ৰ পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক বানালেন
বৈদ্যুতিক বাল্ব, শব্দ রেকর্ডিং, মুভি ক্যামেরা বা চলমান ছবি ইত্যাদি সহ হাজারো আবিষ্কার তাঁর।

মায়ের মৃত্যর পর টমাস এডিসন একদিন সেই ছোট্ট গ্রামে মায়ের সেই ছোট্ট বাড়ীতে গিয়ে ঘর পরিষ্কারের সময় স্কুলের প্রিন্সিপ্যালের দ‌েয়া চিঠিটা পেল। চিঠিখানা পড়ে টমাস কেঁদে দিল। তাতে লেখা ছিল, "ম্যাডাম, আপনার ছেলে টমাস এডিসন একজন মেন্টালি রিটার্ডেড। সে এতটাই নির্বোধ যে, তাকে শিক্ষা দেওয়ার মত ক্ষমতা আমাদের নেই। কার'ও আছে বলেও আমাদের জানা নেই। আপনার ছেলের কারণে আমাদের স্কুলটির সুনাম ক্ষুন্ন হবে। তাই কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আপনার ছেলেকে স্কুল থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করা হল।"

এডিসনের মা হয়তো সেদিন দুঃখ পেয়েই কেঁদেছিলেন। কিন্তু তিনি তার ছেলেকে বুঝতে দেননি সেটা। এদেশের মা হলে হয়তো মেরে পিঠের ছাল তুলে দিত। কিন্তু তাতে একটি খোট ছেলের মানসিক বিকাশের কোন অগ্রগতির সম্পর্ক নেই। ছেলেটির সাথে দূরত্ব সৃষ্টি হয় মায়ের। যদি মানসিক শক্তিটাই সবথেকে বড় শক্তি হয়, তবে সেই শক্তিকেই বাড়িয়ে তোলা উচিত। একজন মা'ই জানেন তার সন্তানের মনের খবর। 

সন্তানের সাথে সর্বদাই পজিটিভ আচরন করবেন। বাসস্থান হল সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং মা হলেন সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষক।

Post a Comment

0 Comments